Breaking News
Home | জাতীয় | সশস্ত্র সংগ্রাম ছাড়া রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়া সম্ভব নয়: অর্থমন্ত্রী

সশস্ত্র সংগ্রাম ছাড়া রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়া সম্ভব নয়: অর্থমন্ত্রী

বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার প্রশ্নে মিয়ানমার সরকার যেভাবে এগুচ্ছে তাতে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়া নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে হলে সশস্ত্র সংগ্রাম করতে হবে। এ জন্য শক্তিধর দেশগুলোকে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। মঙ্গলবার বিকেলে অর্থমন্ত্রণালয়ে নিজ কার্যালয়ে ডিএফআইডির একটি প্রতিনিধি দলের মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিন্ ারোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করছেন। সেখানে আপনি রোঙ্গিাদের ফিরিয়ে দেওয়া নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন, আপনার বক্তব্য প্রধানমন্ত্রীর সাথে ভিন্ন মত হলো কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী যে কথা বলেছেন তা আমাদের সরকারের অবস্থানের কথা। দেশের মানুষও চায় রোহিঙ্গারা নিজ দেশে ফিরে যাক। তবে আমার ব্যক্তিগত মত মিয়ানমার রোঙ্গিাদের ফিরিয়ে নেবে না। রোহিঙ্গারা যুদ্ধ করে আরাকান জয় করে মগদের বিতাড়িত করা ছাড়া ফিরে যাওয়া সম্ভব নয়। এ ক্ষেত্রে প্রতিবেশী দেশ হিসাবে বাংলাদেশের কিছু করার নেই বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ডিএফআইডি প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গাদের দেশে ফিরে যাওয়ার ব্যাপারে বাংলাদেশের পক্ষে কাজ করছে। তারা বিষয়টি নিয়ে আলোচনার জন্য মিয়ানমারেও যেতে চায়। ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জন্য স্থায়ী আবাসনের জন্য সরকার কাজ করছে। ১৯৯০ সালের আগে আসা রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার কোনই সম্ভাবনা নেই। এমন প্রায় ৩ লাখ রোহিঙ্গাসহ সম্প্রতি আসা কিছু রোহিঙ্গাকেও ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে না। এ সব মানুষকে ভাসানচরে পুনর্বাসিত করা হবে। পাশাপাশি কিছু বাংলাদেশিও সেখান থাকবে।

সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এ আগামী বাজেটে রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দের পরিমান বাড়ছে। তবে কি পরিমান অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হবে তা এখনি বলা সম্ভব হচ্ছে না।

About admin

Check Also

ভ্যান চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নামে কিনেছেন জমি, এরপর…

ঢাকার শ্যামলীতে রাস্তার পাশে তুমুল ঝগড়া হচ্ছে। লোকজন জড়ো হয়ে গেছে। পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় কানে এলো—ঝগড়ার মাঝে উচ্চারিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধু আর শেখ হাসিনার নাম। থমকে দাঁড়ালাম। দেখি ছেঁড়া ময়লা শাড়ি পরা এক বৃদ্ধা আর লুঙ্গি পরা এক যুবক শ্যামলী ২ নম্বর রোডের কাজি অফিসের রাস্তার পাশে ঝগড়ায় ব্যস্ত। কিছুক্ষণ ঝগড়া শোনার পর একপর্যায়ে যুবককে উদ্দেশ্য করে বললাম, ‘আপনারা ঝগড়া করছেন, কিন্তু বঙ্গ