Home | রাজনীতি | পশ্চিমবঙ্গে ৯০ শতাংশ আসনে তৃণমূলের জয়, দ্বিতীয় বিজেপি!

পশ্চিমবঙ্গে ৯০ শতাংশ আসনে তৃণমূলের জয়, দ্বিতীয় বিজেপি!

পশ্চিমবঙ্গের গ্রাম-বাংলা ‘মমতাময়’ হয়ে উঠল। পঞ্চায়েত ভোটের তিনস্তরের নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে অর্থাৎ প্রায় আশি শতাংশ আসনে জয়ী হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থীরা। সকাল আজ (১৭ মে) আটটা থেকে ব্যালট-বাক্স খুলে গণনা শুরু করেন গণনা-কর্মীরা। তাঁদের গণনা শেষে মেলে এই ফল।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সর্বশেষ যে ফলাফল পাওয়া গেছে, তাতে বিরোধীদের চেয়ে প্রচুর ব্যবধানে এগিয়ে আছে তৃণমূল কংগ্রেস। গ্রাম পঞ্চায়েতের আসনে তৃণমূলের ২২ হাজার ৮৯৯ জন প্রার্থী জয়ী হয়েছে। বিজেপি জয়ী হয়েছে ৩ হাজার ৭৫ আসনে। বাম দল ৪১০টি এবং কংগ্রেস জয়ী হয়েছে ৫১২টি আসনে। ২০১৩ সালে মমতার আমলেই পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল জিতেছিল ২৫ হাজার ১৭৫টি আসনে, বাম দল জিতেছিল ১৫ হাজার ৬১৪টি আসনে, বিজেপি জিতেছিল ৫৮৪টি আসনে এবং কংগ্রেস জিতেছিল ৫ হাজার ৪৯৫টি আসনে।

সন্ধ্যা পর্যন্ত যা খবর, তাতে দক্ষিণ ২৪ পরগণায় গ্রাম পঞ্চায়েতে ৯০টি আসনে এগিয়ে রয়েছে তৃণমূল। এরপরই দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে উত্তর ২৪ পরগণা জেলা। এখানে ৮১টি গ্রাম পঞ্চায়েত আসন পেয়েছে তৃণমূল। নদীয়া এবং দক্ষিণ দিনাজপুরেও তৃণমূল এখন পর্যন্ত যথাক্রমে ৭০ এবং ৭৩টি আসন পেয়ে জয়ের পথে এগোচ্ছে।
কোচবিহারে ৬১টি আসন পেয়ে বিরোধী দলের সঙ্গে ব্যাপক দূরত্ব বজায় রেখেছে তৃণমূল। তবে গণনা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি বলে সেখানে স্থানীয় সাংবাদিকরা অবস্থান ধর্মঘটে বসেন।

এদিকে, বীরভূমে গণনার কিছুক্ষণের মধ্যে তৃণমূল ২১টি আসনে এগিয়ে রয়েছে বলে জানা যায়। এর পাশাপাশি, পূর্ব–পশ্চিম বর্ধমান, পুরুলিয়া, মালদা, মুর্শিদাবাদ, আলিপুরদুয়ার, বীরভূম, হাওড়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রামসহ সব জেলাতেই গণনার কিছুক্ষণ পরই বোঝা যায় যে তৃণমূলই জয়ী হচ্ছে পঞ্চায়েত নির্বাচনে।
তৃণমূলের তুলনায় ভোটের ব্যবধান অনেক বেশি হলেও রাজ্যজুড়ে জয়ীর তালিকায় বিজেপির অবস্থান দ্বিতীয়। দলটি রাজ্যের পুড্ডি, সারেঙ্গা বিক্রমপুর, সিমলাপাল বিক্রমপুর, কেঞ্জাকুড়া, মানকালী গ্রাম পঞ্চায়েত দখল করেছে। বর্ধমানের ভাতার গ্রাম পঞ্চায়েতের ২১টি আসনের মধ্যে তৃণমূল জিতেছে ১৩টি। বিজেপি ও সিপিএম প্রত্যেকে জিতেছে ৩টি করে আসন। সেখানে নির্দলের ঝুলিতেও গিয়েছে ২টি আসন। বলগোনা গ্রাম পঞ্চায়েত ১৭টি আসনের মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস জয়ী ১৪টি আসনে, ৩টি আসনে জয়ী নির্দল। তবে পূর্ব-বর্ধমানের ভাতারে নিত্যানন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৮টি আসনের ১৮টিতেই জয়লাভ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস।

পাশাপাশি, বড়বেলুন ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের ৯টি আসনের মধ্যে তৃণমূল জিতেছে ৮টি আসনে। নির্দল প্রার্থী জিতেছেন একটিতে। বড়বেলুন ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের ১০টি আসনের মধ্যে ৯টিতে জয়ী তৃণমূল। একটি আসনে জয়ী সিপিএম।
হলদিয়া ব্লকের দেউলপোতা গ্রাম-পঞ্চায়েতের ২ নং বুথে জয়ী নির্দল প্রার্থী বাতাসী রাউত।

থানা পর্যায়ের পঞ্চায়েত সমিতিতে এবার তৃণমূল জয়ী হয়েছে ৩ হাজার ৩৯৬টি আসনে। বিজেপি জয়ী হয়েছে ৪৮টি আসনে, বাম দল জয়ী হয়েছে ৮৭টি আসনে এবং কংগ্রেস জয়ী হয়েছে ২৩টি আসনে। গত ২০১৩ সালের নির্বাচনে তৃণমূল জিতেছিল ৫ হাজার ৩০৬টি আসনে, বাম দল জিতেছিল ২ হাজার ৮২৯টি আসনে। অন্যদিকে সেইবার বিজেপি জিতেছিল ৩৩টি ও কংগ্রেস জিতেছিল ৯১৮টি আসনে।

জেলা পরিষদে এখনো পর্যন্ত তৃণমূল জয়ী হয়েছে ৩৯১টি আসনে। বিজেপি ৯টি, বাম দল ২টি এবং এবং কংগ্রেস ২টি আসনে জয়ী হয়েছে। ২০১৩ সালে ৮২৫টি জেলা পরিষদের আসনের মধ্যে তৃণমূল জিতেছিল ৫৩১টি আসনে, বাম দল জিতেছিল ২১৩টি আসনে এবং কংগ্রেস জিতেছিল ৭৭টি আসনে। বিজেপি সেইবার কোনো আসন পায়নি।
তবে ত্রিস্তরের পঞ্চায়েত নির্বাচনের বহু আসনের ফলাফল ঘোষণা এখনো বাকি রয়েছে। গণনা এখনো চলছে। ধারণা করা হচ্ছে, তৃণমূলের ঘোষণা অনুযায়ী ১০০ শতাংশ না হলেও ৮০-৯০ শতাংশ আসনে জিততে চলেছে শাসক দল তৃণমূল।

About admin

Check Also

ধানের শীষ নিয়ে প্রচার আর চলবে না: নির্বাচন কমিশন সচিব

নির্বাচনী প্রচারে বিএনপি সত্যিকারের ধানের শীষ ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সত্যিকারের হাতপাখা ব্যবহার করতে পারবে …