Breaking News
Home | স্বাধীন | খালেদা জিয়ার জামিন ৫ দিন বৃদ্ধি করে দিলো আদালত

খালেদা জিয়ার জামিন ৫ দিন বৃদ্ধি করে দিলো আদালত

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ ১৯ জুলাই পর্যন্ত বাড়িয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ৫ বছরের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার করা আপিলের শুনানি রোববার পর্যন্ত মুলতবি করেছেন আদালত।
বৃহস্পতিবার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের বেঞ্চে এ আদেশ দেন। আদালতে খালেদার পক্ষে ছিলেন মওদুদ আহমদ, এ জে মোহাম্মদ আলী , জয়নুল আবেদীন ও আব্দুর রেজাক খান। দুদকের পক্ষে রয়েছেন আইনজীবী খুরশীদ আলম।
এর আগে সকাল এগারোটায় খালেদার আপিলের ওপর শুনানি শুরু হয়। শুরুতে খালেদা জিয়ার পক্ষে আইনজীবী আব্দুর রেজাক খান মামলার পেপারবুক থেকে এফআইআর পড়া শুরু করেন। এরপর চার্জশীট পড়েন আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী।

এদিকে এ মামলায় খালেদার জামিনের মেয়াদ ১২ জুলাই শেষ হচ্ছে উল্লেখ করে মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদন করেছিলেন আইনজীবীরা। এ আবেদনের পর আদালত ১৯ জুলাই পর্য্ন্ত জামিনের মেয়াদ বাড়িয়েছেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন মওদুদ আহমদ।এ মামলায় ছয় আসামির মধ্যে খালেদা জিয়াসহ তিনজন কারাবন্দি। বাকি তিন আসামি পলাতক রয়েছেন।
খালেদা জিয়া ছাড়া বাকি দুইজন হলেন, মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ। পলাতক তিনজন হলেন-বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান, সাবেক মুখ্য সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।
গত ৮ ফেব্রুয়ারি বকশীবাজারে কারা অধিদফতরের প্যারেড গ্রাউন্ডে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান মামলাটিতে খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন। একইসঙ্গে খালেদার ছেলে ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেন আদালত। উৎস- আমাদের সময়

বৃহত্তর গণআন্দোলনেই হবে খালেদা জিয়ার মুক্তি: আমান উল্লাহ আমান
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে বৃহত্তর গণআন্দোলনের মাধ্যমে মুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ডাকসুর সাবেক ভিপি আমান উল্লাহ আমান।তিনি অভিযোগ করে বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে ও শেখ হাসিনার আক্রোশে বেগম জিয়া আজকে কারাগারে রয়েছেন। অবিলম্বে তাকে মুক্তি না দিলে বৃহত্তর গণআন্দোলনের মাধ্যমে তাকে মুক্ত করা হবে।
বৃহস্পতিবার (১২জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে তারেক জিয়া সাইবার ফোর্স এর আয়োজনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা, অবৈধ সাজা বাতিল এবং বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে এক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আমান উল্লাহ আমান বলেন, আমাদের নেত্রী আন্দোলন করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। সেই নেত্রীকে আজ যা ইচ্ছা তাই বলা হচ্ছে। বেগম খালেদা জিয়ার আপোষহীন নেতৃত্বের কারণেই স্বৈরাতন্ত্রের পতন হয়ে গণতন্ত্র মুক্ত হয়েছিল। আজ সেই গণতন্ত্র বন্দি, গণতন্ত্রের নেত্রীও বন্দি।
তিনি বলেন,অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচনের স্বপ্ন দেখেন সেই নির্বাচন বাংলাদেশে আর হবে না, হতে দেয়া হবে না। বাংলাদেশে নির্বাচন হতে হলে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে। তারপরে বাংলাদেশে নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনে বাংলাদেশের জনগণ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করবে। সেই নির্বাচনে খালেদা জিয়া আবার রাষ্ট্র প্রধান হবেন।

সংগঠনের সভাপতি ফাতেমা খানমের সভাপতিত্বে এবং দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন- বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দীন আলম, রফিক শিকদার, জাগপার সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক পলাশ মন্ডল, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বদরুল আলম রানা , সাংগঠনিক সম্পাদক শান্ত ইসলাম জুম্মন প্রমুখ।
খবরটি শেয়ার করুন

About admin

Check Also

মা’র কাছে শিখেছিলাম, কাউরে ভাতের খোটা দিতে নাই

রাতে ভাল ঘুম হয় নাই। প্রায় সারা রাত জেগে ছিলাম। এটা শরীর খারাপের জন্য হতে পারে। কয়েকদিন ধরেই সিজনাল অসুখ-বিসুখে ভুগছি। কিন্তু সারারাত ধরেই একটা বিষয় মাথার মধ্যে ঘুরেছে। কোনমতেই সেটা হজম হচ্ছে না।যখনই মনে পড়ছে, তখনই শরীর গুলিয়ে উঠছে। সম্ভব হলে দীর্ঘ সময় ধরে যদি বমি করে সব অপমান ঝেড়ে ফেলতে পারতাম? আমি এই দেশের আশীর্বাদপুষ্ট মানুষগুলোর একজন। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু ক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *