Home | টেলিগ্রাফ | যুবলীগ নেতার ভয়ে দিন পার করছে একটি হিন্দু গ্রাম

যুবলীগ নেতার ভয়ে দিন পার করছে একটি হিন্দু গ্রাম

হবিগঞ্জের সুনারু গ্রামের সাধারণ হিন্দু পরিবারগুলোকে হত্যা ও মামলার হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন জেলার যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম বলে অভিযোগ করেছেন জেনোসাইড বাংলাদেশের সভাপতি সুসান্ত দাস গুপ্ত। বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টারস ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানান তিনি।
তিনি বলেন, আমাদেরকে এলাকা ছাড়া করে আমাদের জমি দখল করাই তার এক মাত্র উদ্দেশ্য। সে আমাদের নানা ভাবে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে, যাতে আমরা এলাকা ছেড়ে ইন্ডিয়া চলে যাই। আমরা যদি এই দেশ ছেড়ে চলে না যাই তাহলে আমাদের জোর করে মুসলমান করে দেওয়া হবে। আমরা যদি মুসলমান না হই তাহলে আমাদের আগুনে পুড়িয়ে মারা হবে তারা বিভিন্ন ভাবে ভয় দেখিয়ে যাচ্ছে। আমরা কয়েকবার থানায় গিয়ে মামলা করেতে চেয়েছি কিন্তু এই নেতা প্রভাবশালী হওয়ার কারণে থানায় মামলা নেয়নি।

তিনি বলেন, আমারা এখন আমাদের নিরাপত্তা চাই, আমার সবাই আওয়ামী লীগ এর কর্মী। যে আমাদের নানা ভাবে হুমকি দিযে যাচ্ছে তিনিও একজন এই সংগঠনের নেতা। এটা কিভাবে সম্ভব? আমারা চাই এর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয় এবং আমাদের নিরাপত্তা সরকার থেকে যেন নিশ্চিত করা হয়। উৎস- আমাদের সময়
আরও পড়ুন- রমজান মাস শেষ হলে আবার কবরের আজাব শুরু হয়?
মাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’। জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় এনটিভির জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দ‍র্শকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।

বিশেষ আপনার জিজ্ঞাসার ৫ম পর্বে রমজান মাস শেষ হলে আবার কবরের আজাব শুরু হয় কি না, সে সম্পর্কে ঢাকা থেকে টেলিফোনে জানতে চেয়েছেন কাকলি। অনুলিখনে ছিলেন জহুরা সুলতানা। প্রশ্ন : আমরা জানি যে রমজান মাসে কবরের আজাব বন্ধ থাকে। কিন্তু রমজানের পর তাদের কবরের আজাব কি আবার শুরু হয়, নাকি কবরের আজাব মাফ হয়ে যায়?
উত্তর : এই মর্মে কোনো হাদিস অথবা কোনো দলিল আসেনি। একটি হাদিস থেকে ওলামায়ে কেরামদের মধ্যে কেউ কেউ একটা বিষয় উৎঘাটন করেছেন। সেটি হচ্ছে এই— রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যখন রমজান মাস আসে তখন রহমতের দরজাগুলো খুলে দেওয়া হয় আর জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়।’

রাসুল (সা.)-এর হাদিস থেকে বোঝা যায় যে, কবরের আজাব তো মূলত জাহান্নাম থেকে আসে, জাহান্নামের দরজা বন্ধ করে দেওয়ার অর্থ হচ্ছে, কবরের আজাবগুলো বন্ধ হয়ে থাকে। এটা একদল ওলামায়ে কেরামের উৎঘাটন। এই উৎঘাটনটুকু যথাযথ নয়।
কারণ হচ্ছে, কবরের আজাব জাহান্নাম থেকে হচ্ছে নাকি অন্য কোনো জায়গা থেকে হচ্ছে, এই সম্পর্কে রাসুল (সা.)-এর হাদিস থেকে বোঝা যাচ্ছে, জাহান্নাম থেকে কবরের আজাব হয়, কিন্তু অন্য স্থান থেকে, অন্য কোনো উৎস থেকে কবরের আজাব হয় না, এই মর্মে রাসুল (সা.)-এর কোনো বক্তব্য প্রমাণিত হয়নি। বরং রাসুল (সা.)-এর সহিহ বুখারীর যে হাদিসটি রয়েছে, সেখান থেকে বোঝা যায় যে, কবরের আজাব শুধু জাহান্নাম থেকে হয় না, বিভিন্ন অপরাধের কারণেও কবরের আজাব হতে পারে। যেটি আল্লাহর নবী (সা.) হাদিসের মধ্যে উল্লেখ করেছেন। তাই কবরের আজাব রমজান মাসে বন্ধ থাকে এই বক্তব্য যথাযথ নয়, সঠিকও নয়।

দ্বিতীয়ত হচ্ছে, যদি ধরে নেওয়া হয় যে, রমজান মাসে কবরের আজাব বন্ধ থাকবে, এর অর্থ হচ্ছে শুধু রমজান মাসের জন্য বন্ধ থাকবে। রমজান মাসের পরে আবার কবরের আজাব শুরু হবে। যে-ই কবরের আজাবের জন্য উপযুক্ত, তাঁর আজাব বজায় রাখা হবে। শুধু রমজান মাসকে বিশেষ গুরুত্বের কারণে আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা হয়তো তাঁদের শাস্তি লাঘব করবেন, এটা হতে পারে।
খবরটি শেয়ার করুন

About admin

Check Also

‘দিল্লি লুটের সময়ও এত টাকা লুট হয়নি’

দেশের ব্যাংক ও আর্থিক খাতের বিশৃঙ্খলা ও অনিয়ম নিয়ে জাতীয় সংসদে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *