Breaking News
Home | টেলিগ্রাফ | আমি বিশ্বাস করি না এটা মাদকবিরোধী অভিযান

আমি বিশ্বাস করি না এটা মাদকবিরোধী অভিযান

আমি বিশ্বাস করি না যে, এটা প্রকৃতপক্ষে মাদকবিরোধী অভিযান। আমরা দেখছি না যে, দেশের মাদক রাজ্যের গডফাদারদের হত্যা করতে। আমরা দেখি না যে, মাদকের সাথে সুপরিচিত গডফাদারদের গ্রেফতার করতে বা তাদের বিচারের আওতায় আনতে। আমরা দেখছি, ছোট ছোট চুনোপুটি মাদক ব্যবসায়ীদের ধরে ধরে হত্যা করতে। সাধারণ মাদক ব্যবসায়ী বা নি¤œস্তরের মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার হতে বা ক্রসফায়ারের শিকার হতে দেখছি। মাদক সিন্ডিকেটের মালিকদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। অনেক সময় দেখা যায়, এই ধরনের অভিযান পরিচালনা করা হয় টাকা পয়সা ইনকাম করার জন্য।
আরেকটা আশঙ্কা আছে যে, বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে এ অভিযান ব্যবহার করা হতে পারে বলে আমার ধারণা। যাকেই ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয়, তার সম্পর্কে সত্যতা যাচাই-বাছাই করে সেটা করতে হবে। সরকার যদি সত্যিই মাদক নির্মূল করতে চায়, তাহলে স্পেশাল একটি আইন তৈরি করা উচিত এবং তা করুন।

পুলিশ জানে যে, কারা মাদকের ব্যবসা করে। পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে স্পেশাল আইনে তাদের বিচার করুক। যা করতে হবে আইনের আলোকে করতে হবে। এক্ষেত্রে বর্তমান বিচারব্যবস্থা অপর্যাপ্ত হলে সেটার সংস্কার করতে হবে। কোন সরকারের অধীনেই খুন কোন বৈধ কাজ নয়। যে দেশের সরকার খুন করা শুরু করে, সে দেশের মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে। এমনকি সে দেশের মৌলিক মানবাধিকার বলে কিছুই থাকে না।পরিচিতি : অধ্যাপক, আইন বিভাগ, ঢাবি/ মতামত গ্রহণ : মো. এনামুল হক এনা/ সম্পাদনা : জাফরুল আলম

বন্দুকযুদ্ধে রাজধানীসহ নয় জেলায় ১২ জন নিহত
মাদকবিরোধী অভিযানে গতরাতে রাজধানী ঢাকাসহ ৯ জেলায় আরও ১২ জন নিহত হয়েছে। এতে চলমান অভিযানের ১৪ দিনে গোলাগুলিতে নিহতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৯৮ জনে। তাদের সবাই মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি করছে পুলিশ ও র‍্যাব।
কুমিল্লার দেবিদ্বার ও সদর দক্ষিণ উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে ২ জন নিহত হয়। নিহত এনামুল হক দোলনের বিরুদ্ধে ১২টি এবং নুরু মিয়ার নামে ১৩টি মামলা রয়েছে। পিরোজপুর সদর ও মঠবাড়িয়ায় পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে নিহত হয়েছে অহিদ ও মিজান নামের আরও ২ জন। অহিদ এবং মিজানও একাধিক মামলার আসামি।

এদিকে সাতক্ষীরা সদরের বাজুয়াডাঙ্গায় মাদক ব্যবসায়ী দুপক্ষের গোলাগুলিতে ইমদাদুল হক ও খলিলুর রহমান পটু এবং ঝিনাইদহ সদরের জারগ্রামে ফরিদ হোসেন নামের একজন নিহত হয়।
এছাড়া চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে লাল বাদশা, মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিমে কানা সুমন, পাবনার বেড়ায় ইজ্জত আলী এবং নাটোরের সিংড়ায় র‍্যাবের সঙ্গে গোলাগুলিতে আব্দুল খালেক নামের একজন নিহত হয়। সবগুলো ঘটনাতেই অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য উদ্ধারের দাবি করেছে র‍্যাব-পুলিশ।
খবরটি শেয়ার করুন

About admin

Check Also

‘দিল্লি লুটের সময়ও এত টাকা লুট হয়নি’

দেশের ব্যাংক ও আর্থিক খাতের বিশৃঙ্খলা ও অনিয়ম নিয়ে জাতীয় সংসদে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *